দূতাবাসের বিভ্রান্তিকর নোটিশে বিপাকে ইতালি প্রবাসীরা

করোনাভাইরাসের (কোভিট-১৯) শুরুর সময় হতে ইতালিয় সরকার ঘোষণা করে যারা ইতালির ডকুমেন্ট নিয়ে অন্যদেশে বা নিজদেশে আটকা পড়েছেন; তাদের ডকুমেন্টের মেয়াদ আগস্ট পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। এ সময়ের মধ্যে যাদের ইতালীয় ডকুমেন্টের মেয়াদ শেষ হয়েছে বা হবে তারা আগস্টের শেষ তারিখ পর্যন্ত বিনা বাধায় ইতালিতে প্রবেশ করতে পারবেন।

দেশটির প্রধানমন্ত্রী প্রফেসর জুসেপ্পে কন্তে এ কথা একাধিকবার বলেছিলেন। কিন্তু কয়েকদিন আগে বাংলাদেশের রোম দূতাবাস থেকে একটি নোটিশের মাধ্যমে জানানো হয়েছে, মেয়াদ শেষ হওয়া অভিবাসীদের ইতালিতে প্রবেশ করতে হলে রি-এন্ট্রি ভিসা নিতে হবে।

এতে কমিউনিটিতে ব্যাপক বিভ্রান্তি দেখা দেয়। বিশেষ করে প্রবাসীদের মধ্যে যারা এখন বাংলাদেশে আটকা পড়েছেন। এছাড়া বিভ্রান্তির মূল কারণ ইতালিয় কোনো মিডিয়া বা সরকারি কোনো দপ্তর থেকে এমন কোনো নোটিশ কোথায়ও জানানো হয়নি।

অনেকে প্রশ্ন তোলেন আমাদের দূতাবাস থেকে প্রচারিত নোটিশের সত্যতা কী! এ বিষয়ে জানতে দূতাবাসের রোম ও মিলান শাখায় যোগাযোগ করা হলে জানানো হয়েছে, ঢাকার ইতালিয় দূতাবাস থেকে রোমের বাংলাদেশ দূতাবাসকে ওই নোটিশ জানানো হয়েছে। কিন্তু ইতালির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, এটা সঠিক নয়।

কিন্তু দেখা যায় রোম দূতাবাস থেকে আরেক নোটিশে বলা হয়েছে, আগস্টের শেষ পর্যন্ত কোনো প্রকার রি-এন্ট্রি ভিসা দরকার হবে না।

এর মধ্যে বহু মানুষ রি-এন্ট্রি ভিসার জন্য দৌঁড়ঝাপ শুরু করেন। দালালরা ৩০ থেকে ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত হাতিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে, কারো কারো কাছ থেকে নিয়েছেও।

ইতিপূর্বে বাংলাদেশ রোম দূতাবাস অনেকগুলো বিভ্রান্তিকর নোটিশ দিয়েছে এবং পরিবর্তন করেছে। সাধারণ ইতালি প্রবাসীরা মনে করছে,  দূতাবাস এমন কোন নোটিশ প্রকাশ করা উচিত নয় যার কোন ভিত্তি নেই ও আইনগত বৈধতা নেই। কোভিট-১৯ এর প্রথম দিকে প্রবাসীদের বাংলাদেশে গমন নিয়েও অনেক বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রকাশ করে দূতাবাস ও স্বয়ং রাষ্ট্রদূত।

ইতালির বাংলাদেশ রোম দূতাবাস ইতিমধ্যে অনেক বিতর্ক সৃস্টি করেছে। সব বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণে দক্ষতার কোন রকম ছিটা ফোঁটাও নেই এমন অনেকগুলো প্রমাণ রয়েছে। এ সব নিয়ে কমিউনিটিতে অসন্তোষ দেখা দিয়েছে ইতিমধ্যে।

সচেতন মহল মনে করছে, আগামীতে দূতাবাস থেকে এ ধরনের কোনো নোটিশ প্রকাশ করলে সূত্র উল্লেখ করা এবং মূল নোটিশসহ অনুবাদ প্রকাশ করা উচিত। তাহলে হয়রানি ও দালালির হাত হতে রক্ষা পাবে সাধারণ প্রবাসীরা।   

Source Link

Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!