ওমানের কারাগার থেকে মুক্তি পেয়ে আজ দেশে ফিরলেন ২৮৮ জন বাংলাদেশি শ্রমিক

ওমানের বসবাসের বৈধ কাগজপত্র না থাকায় দেশটির কারাগার আছেন বেশ কিছু বাংলাদেশি শ্রমিক। কারাগার থেকে বিশেষ ক্ষমায় মুক্তি দেওয়া ২৮৮ জন প্রবাসী বাংলাদেশি দেশে ফিরে এসেছেন। দেশটির সরকার একটি বিশেষ ফ্লাইটে তাদের দেশে পাঠানো ব্যবস্থা করে। এ নিয়ে দেশটি থেকে দুই দফায় ৪৬৯ জন প্রবাসী বাংলাদেশিকে দেশে ফেরত পাঠানো হলো। এর আগে গত মাসে আগে ১৮০ জনকে দেশে ফেরত পাঠায় ওমান।

আজ শুক্রবার সন্ধ্যা ৬.৪৮ মিনিটে ২৮৮ জন প্রবাসী বাংলাদেশিকে নিয়ে ওমান এয়ারের একটি বিশেষ ফ্লাইট হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

বিমানবন্দরের পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন এ এইচ এম তৌহিদ উল আহসান এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, ইমিগ্রেসনসহ স্বাস্থ্য পরীক্ষার করে সিদ্ধান্ত নেবে স্বাস্থ্য বিভাগ।

বিমানবন্দর স্বাস্থ্য বিভাগ জানায়, নিয়ম অনুযায়ী ওমান ফেরত সবাইকে প্রথম হজ ক্যাম্পে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। সেখানে প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে তাদের প্রাতিষ্ঠানিক ও হোম কোয়ারেন্টিনে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হবে।

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে কর্মরত স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক ডা. শাহরিয়ার সাজ্জাদ বলেন, ওমান সরকার এই বাংলাদেশিদের কোয়েন্টিনের সময় পার করেছেন বলে নিশ্চিয়তা দিয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়েছে। সে কারণে তাদের সবাইকে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে পাঠানোর প্রয়োজন পড়ছে না। থার্মাল স্কিনিংয়ে কারো তাপমাত্রা বেশি থাকলেই তাকেই শুধু প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হবে। বাকিরা নিজ বাসায় ১৪ দিনের হোম কোয়ারেন্টিন থাকবেন।

ওয়ান মিটারের তথ্য অনুযায়ী, ওমানে বর্তমানে করোনাই আক্রান্ত ১৭৯০ জন। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় ৭৪ জন নতুন আক্রান্ত হয়েছেন। এ ছাড়া এ পর্যন্ত ৯ জন মারা গেছেন।

এদিকে ওমানে মানবসম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, মাস্কাটসহ ওমানের বিভিন্ন এলাকা থেকে অবৈধ শ্রমিকদের গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তার অভিযানে ফ্রি ভিসার (ফ্রিল্যান্স কাজ), স্পন্সরদের থেকে পালিয়ে কাজ করার অপরাধ এবং যথাযথ বৈধ কাগজপত্র না দেখাতে পারায় প্রায় হাজার খানেক মানুষকে জনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

ওমানের গণমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে, করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে মধ্য প্রাচ্যের অন্য দেশগুলোর মতো কারাগারে থাকা প্রবাসী কয়েদিদের নিজ নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর উদ্যোগ নেয় ওমান সরকার। দেশটির সুলতানের বিশেষ ক্ষমার আওতায় গত মাসের শুর থেকে বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তানসহ বিভিন্ন দেশের প্রবাসীদের পাঠানোর প্রক্রিয়া শুরু করে দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

প্রসঙ্গত, মরুর দেশ ওমানে বর্তমানে নয় লাখ বাংলাদেশি আছেন। কাজের সন্ধানে প্রতিনিয়ত বাংলাদেশ থেকে আরো বহু শ্রমিক প্রবেশ করছেন। এদের মধ্যে বড় একটি অংশ দালালের মাধ্যমে ফ্রি ভিসা নিয়ে এদেশে আসছেন। ফ্রি ভিসায় আসা নাগরিকদের ওমান থেকে বের করে দেওয়ার জন্য দেশটির পুলিশ ও অভিবাসন বিভাগ যৌথভাবে বিভিন্ন সময় অভিযান পরিচালনা করছে। পুলিশের অভিযানে গ্রেপ্তার হওয়ার বড় একটি অংশই থাকে বাংলাদেশি শ্রমিক।

Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!