আন্তর্জাতিক ও অভ্যন্তরীণ যাত্রীবাহী ফ্লাইট ৭ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ, চীনে চলাচল অব্যাহত থাকবে

করোনা ভাইরাসের কারণে আন্তর্জাতিক ও অভ্যন্তরীণ রুটের ফ্লাইট বন্ধের সময়সীমা ৭ দিন বাড়ানো হয়েছে। নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, আগামী ৭ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ থাকবে যাত্রীবাহী ফ্লাইট চলাচল। তবে বিশেষ কার্গো ফ্লাইট ও নিয়মিত কার্গো ফ্লাইট যথারীতি চলবে।

বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক) সূত্রে জানা গেছে, আন্তর্জাতিক ফ্লাইটে যাত্রী পরিবহনের (সিডিউল পেসেঞ্জার ফ্লাইট) ক্ষেত্রে ফ্লাইট চলাচল নিষেধাজ্ঞা ৩১ মার্চ এর স্থলে আগামী ৭ এপ্রিল পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়েছে। একই সঙ্গে অভ্যন্তরীণ যাত্রী পরিবহনের ক্ষেত্রে ফ্লাইট চলাচল নিষেধাজ্ঞা আগামী ৭ এপ্রিল পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়েছে।

এদিকে আগামীকাল রোববার ফ্লাইট পরিচালনার পর ৭ দিনের জন্য লন্ডন ও ম্যানচেস্টারের ফ্লাইট বন্ধ রাখবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস। এছাড়া সৌদি আরবের জেদ্দা, মদিনা, রিয়াদ, দাম্মাম, কুয়েতের কুয়েত সিটি, কাতারের দোহা, ওমানের মাসকাট ও থাইল্যান্ডের ব্যাংকক রুটের ফ্লাইট ৫ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। এছাড়া ৭ এপ্রিল পর্যন্ত আরব আমিরাতের আবুধাবি, ৯ এপ্রিল দুবাই, ১২ এপ্রিল নেপালের কাঠমান্ডু, ভারতের কলকাতা ও নয়াদিল্লি ১৫ এপ্রিল, মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুর ১৪ এপ্রিল ও সিঙ্গাপুরে ১১ এপ্রিল পর্যন্ত সব ফ্লাইট পরিচালনা বন্ধ থাকবে।

তবে শুধু চীনের ফ্লাইট চলবে। এছাড়া কোনো দেশ তাদের নাগরিকদের দেশে ফিরিয়ে নিতে চাইলে অনুমতি সাপেক্ষ বিশেষ ফ্লাইটে নিয়ে যেতে পারবে।

বাংলাদেশ থেকে চীনে বর্তমানে তিনটি এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট চলাচল করে। প্রতিষ্ঠান তিনটি হলো- ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স, চায়না ইস্টার্ন ও চায়না সাউদার্ন। তবে যাত্রী সংকটের কারণে সপ্তাহে এই তিন এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট সংখ্যা ১৮ থেকে তিনে নেমে এসেছে।

চায়না সাউদার্ন ও চায়না ইস্টার্ন সূত্রে জানা যায়, ঢাকা থেকে গুয়াংজু রুটে চলাচলকারী চায়না সাউদার্ন এখন থেকে বৃহস্পতি ও শনিবার অর্থাৎ সপ্তাহে দুটি ফ্লাইট চালাবে। চায়না ইস্টার্ন ঢাকা-কুনমিং রুটে একটি অর্থাৎ প্রতি বৃহস্পতিবার ফ্লাইট চালিয়ে যাবে। আগে এই রুটে চায়না ইস্টার্নের সপ্তাহে চারটি ফ্লাইট চললেও ১০ দিনে তাদের পাঁচটি ফ্লাইটের মধ্যে চারটিই যাত্রী সংকটের কারণে বাতিল হয়েছে।

এছাড়া চীন রুটে ইউএস-বাংলা আগে সপ্তাহে সাতটি ফ্লাইট চালিয়ে এলেও এখন তারা সপ্তাহে একদিন অর্থাৎ প্রতি রোববার গুয়াংজু রুটে ফ্লাইট চালাবে।

ইউএস-বাংলা গ্রুপের মহাব্যবস্থাপক (জিএম-পিআর) কামরুল ইসলাম জানান, ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স ২৯ মার্চ থেকে কেবল প্রতি রোববার ঢাকা-গুয়াংজু রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করবে। আগে এই রুটে ইউএস-বাংলা সপ্তাহে সাতটি ফ্লাইট পরিচালনা করতো। করোনার প্রভাবে এই সংখ্যা কমিয়ে তিনে আনা হয়েছিল। এই সংখ্যা বর্তমানে এক করা হয়েছে।

হংকং থেকে ঢাকায় আসা ক্যাথে প্যাসিফিকের ফ্লাইটটি শনিবার রাতে শেষ বারের মতো বাংলাদেশে নামবে। পরে যাত্রী নিয়ে ঢাকা থেকে হংকং চলে যাবে। পরবর্তী নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত তারাও আর ঢাকায় আসবে না।

দেশের বিমান চলাচলের সর্বশেষ পরিস্থিতি জানতে চাইলে বেবিচক চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মফিদুর রহমান বলেন, এই দেশগুলো করোনার প্রাদুর্ভাব থেকে অপেক্ষাকৃত কম ঝুঁকিপূর্ণ। তাই এ রুটে যাত্রী আসা-যাওয়া চালু রাখা হয়েছিল। তবে এয়ারলাইন্স কোম্পানিগুলো নিজ উদ্যোগে নিজেদের ফ্লাইটগুলো বন্ধ ঘোষণা করেছে। আমরা সার্বিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছি। যদি চলমান কোনো ফ্লাইটে (চীন) ঝুঁকি মনে হয় তাহলে আমরা সেই ফ্লাইটও বন্ধের সিদ্ধান্ত নেব।

বর্তমান প্রেক্ষাপটে শাহজালাল ছাড়া দেশের অন্য দুই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর চট্টগ্রামের শাহ্ আমানত ও সিলেটের ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আর কোনো ফ্লাইট চলাচল করবে না। দেশি-বিদেশি নিষেধাজ্ঞার পর একমাত্র বিমানের লন্ডন ফ্লাইটটি সিলেটে অবতরণ করতো। ২৯ মার্চ লন্ডন থেকে আসা সর্বশেষ ফ্লাইটটি সিলেটে নামবে। বিমানের ফ্লাইট বন্ধের সিদ্ধান্তের পর সিলেট বিমানবন্দরও ফ্লাইটশূন্য হতে যাচ্ছে।

দেশের অন্য দুই এয়ারলাইন্সের মধ্যে রিজেন্ট এয়ারওয়েজ তিন মাসের জন্য সব ধরনের ফ্লাইট অপারেশন বন্ধ রেখেছে। এছাড়া সরকারি নিষেধাজ্ঞার কারণে বেসরকারি বিমান সংস্থা নভোএয়ারেরও সব ফ্লাইট বন্ধ রয়েছে।

বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাসে দেশে শনিবার পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৪৮। সংক্রমিত মোট ১৫ জন সুস্থ বাড়ি ফিরেছেন। আর মৃতের সংখ্যা ৫।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য অনুযায়ী সারা বিশ্বে আক্রান্ত হয়েছে ৫ লাখ ৯ হাজার ১৬৪ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় এখানে সংযোজিত হয়েছে ৪৬ হাজার ৪৮৪ জন। বিশ্বে মৃতের সংখ্যা ২৩ হাজার ৩৩৫। গত ২৪ ঘণ্টায় এখানে যুক্ত হয়েছে ২ হাজার ৫০১ জন।’

বিশ্বজুড়ে এই মহামারীর কারণেই বিশ্বের বিভিন্ন দেশ ও এয়ারলাইন্স ফ্লাইট চলাচল বন্ধ রেখেছে।

নিউজ সোর্স – বণিক বার্তা

Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!